Register Now

Login


Lost Password

Lost your password? Please enter your email address. You will receive a link and will create a new password via email.

Login


Register Now

Welcome to Our Site. Please register to get amazing features .

Deep Learning – ডিপ লার্নিং এর সুচনা

Deep Learning – ডিপ লার্নিং এর সুচনা

বর্তমান সময়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সবচেয়ে বেশি প্রবলেম সলভে কাজে লাগছে এই ডিপ লার্নিং এর এলগোরিদমগুলো। সধারণভাবে বলতে গেলে- মেশিন লার্নিং আর ডিপ লার্নিং এর মধ্যে পার্থক্য হল নিউরাল নেটওয়ার্কের কমপ্লেক্সিটি। যা ডিপ লার্নিং এর ক্ষেত্রে অনেক বেশি কমপ্লেক্স এবং মাল্টি লেয়ার্ড হয়ে থাকে। এখানে অনেক বেশি ডেটা নিয়ে রিয়াল লাইফ প্রবলেমগুলো সলভ করা হয়। এখানে কম্পিউটেশনাল কস্ট মেশিন লার্নিং এলগোরিদমগুলোর চেয়ে অনেক বেশি হয়ে থাকে, তাই অনেক সময় শক্তিশালী হার্ডওয়্যারের প্রয়োজন হয়।

ডিপ লার্নিং হচ্ছে মেশিন লার্নিং এর একটি ব্র্যাঞ্চ বা একটা মেশিন লার্নিং টেকনিক যা কিনা নিজে নিজেই সরাসরি ডাটা থেকে ফিচার এবং টাস্ক শিখে নিতে পারে। সেই ডাটা হতে পারে ইমেজ, টেক্সট এমনকি সাউন্ড। অনেকেই ডিপ লার্নিং -কে এন্ড টু এন্ড লার্নিং-ও বলে থাকেন। ডিপ লার্নিং টেকনিকের খুব পুরনো এবং বহুল পরিচিত ব্যাবহার হয় পোস্টাল সার্ভিসে খামের উপর বিভিন্ন ধরনের হাতের লেখা চিহ্নিত করতে। মোটামুটি ১৯৯০ সালের দিক থেকেই ডিপ লার্নিং এর এই প্রয়োগ চলে আসছে।

২০০৪/২০০৫ সালের দিক থেকে ডিপ লার্নিং এর ব্যবহার খুব উল্লেখ যোগ্য ভাবে বেড়ে চলছে। মূলত তিনটি কারণে — প্রথমত ইদানিং কালের ডিপ লার্নিং মেথড গুলো মানুষের চেয়ে অনেক বেশি ভালো ভাবে অবজেক্ট রিকগনিশনের বা ক্লাসিফিকেশনের কাজ করতে পারছে, দ্বিতীয়ত GPU এর কল্যাণে অনেক বড় আকারের ডিপ নেটওয়ার্ক খুব কম সময়ের মধ্যেই লার্নিং শেষ করে নিতে পারছে, তৃতীয়ত, খুব ইফেক্টিভ লার্নিং এর জন্য যে পরিমাণ ডাটার প্রয়োজন পরে সেই লেভেলের ডাটা গত ৫/৬ বছরে ব্যবহার উপযোগীভাবে তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন সার্ভিসের মাধ্যমে।

বেশির ভাগ ডিপ লার্নিং মেথড নিউরাল নেটওয়ার্ক আর্কিটেকচার ফলো করে আর তাই ডিপ লার্নিং মডেলকে মাঝে মধ্যেই ডিপ নিউরাল নেটওয়ার্ক হিসেবেও বলা হয়ে থাকে। খুব পপুলার একটি ডিপ লার্নিং মডেল হচ্ছে কনভলিউশনাল নিউরাল নেটওয়ার্ক বা CNN. এ ধরনের নেটওয়ার্ক বিশেষ করে ইমেজ ডাটা নিয়ে কাজ করার সময় ব্যবহৃত হয়ে থাকে। যখন বেশ কিছু লেয়ার নিয়ে একটি নিউরাল নেটওয়ার্ক ডিজাইন করা হয় তখন এটাকেই ডীপ নিউরাল নেটওয়ার্ক বলে। এই লেয়ারের সংখ্যা হতে পারে ২-৩ টি থেকে শ-খানেক পর্যন্ত।

সায়েন্স ফিকশন বয়সের দিক থেকে শতবর্ষ পেরিয়ে গেছে। সায়েন্স ফিকশন গুলোর শুরুর দিক থেকেই আমরা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন যন্ত্রের দেখা পেয়ে আসছি। বাস্তবে এখনও বুদ্ধিমত্তার সেই স্তরে পৌঁছানো সম্ভব হয়নি মানুষের পক্ষে। তবে সেই পথে অনেকটাই এগিয়ে গেছে মানুষ। কম্পিউটিংয়ের গতিশীল ধারায় এমন প্রযুক্তি মানুষ উদ্ভাবন করতে সমর্থ হয়েছে, যাতে করে এখন যন্ত্র-মানবেরা সনাক্ত করতে সক্ষম হচ্ছে বস্তুকে। এখন যন্ত্রের মাধ্যমে রিয়েল-টাইমে এক ভাষা থেকে অন্য ভাষায় অনুবাদ পাওয়া যাচ্ছে। যন্ত্রের এই শিক্ষণ-পদ্ধতিকেই বলা হচ্ছে ‘ডিপ লার্নিং’। “ডিপ লার্নিং” , ডিপ স্ট্রাকচারড লার্নিং, হায়ারারকিকাল লার্নিং বা ডিপ মেশিন লার্নিং নামেও পরিচিত ।

ডিপ-লার্নিং সিস্টেম প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে , তাদের মধ্যে ইউটিউব , ইউটিউব থেকে প্রায় ১০ মিলিয়ন ছবি বাছাই করে প্রদর্শন করে, যেসব ছবিতে সুনির্দিষ্টকোনো বস্তুর অবস্থান রয়েছে। আবার মাইক্রোসফট রিয়েল টাইমে ভাষান্তরের সফটওয়্যার তৈরি করেছে এরই মধ্যে । কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে কাজ করছে এমন আরও অনেক প্রতিষ্ঠান। প্রকৃতপক্ষে ‘ডিপ লার্নিং’ কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তাকে ভিন্ন একটি স্তরে পৌঁছে দিচ্ছে। যা সায়েন্স ফিকশনকে বাস্তবে পরিণত করতে সহায়তা করছে ।

ডিপ লার্নিং এর অ্যাপ্লিকেশনসমূহ

  • ছবি থেকে বিভিন্ন অবজেক্ট চিহ্নিতকরন এবং ক্লাসিফিকেশন তৈরিকরা,
  • সাদা ও কালো ছবির Colorization.
  • ছবিতে ক্যাপশন জেনারেশন এবং চিহ্নিতকরন ,
  • স্বয়ংক্রিয় হস্তাক্ষর জেনারেশন এবং চিহ্নিতকরন ,
    ক্যারেক্টার টেক্সট জেনারেশন এবং চিহ্নিতকরন ,
  • নির্বাক চলচ্চিত্রের সাউন্ড যোগ করার পদ্ধতি .
  • শব্দ থেকে টেক্সট জেনারেশন ,
  • স্বয়ংক্রিয় মেশিন ট্রান্সলেসন.
  • স্বয়ংক্রিয় গেম খেলা ,
  • বিগ ডাটা এনালাইসিস ,

আরও অন্যান্য চমকপ্রদ কিছু অ্যাপ্লিকেশন আছে ।

পাইথন কেন ব্যাবহার করবো?
পাইথন , R এবং MATLAB এর ন্যায় পুর্নাংগ ফিচারসমৃদ্ধ জেনারেল পারপাস প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ । এটি দ্রুত এবং সহজ, এবং কোডলেখা অত্যন্ত সহজ এবং বুঝতে ঠিক সি++ এবং জাভার মত । পাইথনে রয়েছে সমৃদ্ধ অনেক লাইব্রেরী । যা দিয়ে ডিপ মেশিন লার্নিং এর ক্লাসিকাল এবং ফলিত কিছু অ্যাপ্লিকেশন খুব সহজেই ইমপ্লিমেন্টকরা যায় ।
এরকম কিছু লাইব্রেরী হচ্ছে…
1. Caffe
2. Theano
3. TensorFlow
4. Lasagne
5. Keras
6. mxnet

About Ask me anything


Follow Me

Leave a reply

Captcha Click on image to update the captcha .